তৈরি পোশাক শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির প্রস্তাব বিষয়ে টিআইবির পর্যবেক্ষণ ও সুপারিশ

প্রকাশকাল: ২১ নভেম্বর ২০২৩

বাংলাদেশ শ্রম আইন, ২০০৬ এর ১৩৯(১) ধারা অনুযায়ী ও তৈরি পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির আন্দোলনের প্রেক্ষিতে সর্বনিম্ন মজুরি ১২৫০০ টাকা নির্ধারণ করে নিম্নতম মজুরি হার খসড়া প্রস্তাব করেছে ১১ নভেম্বর, ২০২৩ গেজেট প্রকাশ করে নিম্নতম মজুরি বোর্ড। যদিও এই প্রস্তাবিত মজুরিতে সম্মত না হয়ে পোশাকশ্রমিকরা আন্দোলনরত রয়েছেন। তাদের দাবি, উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে এই মজুরি তাদের প্রয়োজন মেটাতে যথেষ্ঠ নয়।

এমন বাস্তবতায় নিম্নতম মজুরি বোর্ডের নতুন প্রস্তাবিত নিম্নতম মজুরি হার বিশ্লেষণ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। প্রকাশিত গেজেটের ভিত্তিতে পূর্ববর্তী মজুরি হার থেকে বছরপ্রতি ৫ শতাংশ বৃদ্ধির বিধান বিবেচনায় ও মূল্যস্ফীতি সমন্বয় করে প্রকৃতপক্ষে মজুরি বোর্ডকর্তৃক প্রস্তাবিত শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির প্রকৃত হার কতো তা দেখার চেষ্টা করে দেখা হয়েছে। এই বিশ্লেষণে প্রাপ্ত ফল বিস্তারিত দেখানো হলো:

২০১৮ সালের ৮ অক্টোবর প্রকাশিত গেজেট অনুযায়ী প্রতি বছর ৫% হারে মূল মজুরি বৃদ্ধির করার নির্দেশনা রয়েছে। প্রতিবছর মূল মজুরি ৫% হারে বাড়লে ২০২৩ সালে এসে পূর্বের গ্রেড-৭ ও প্রস্তাবিত গ্রেড-পাঁচ এর মূল মজুরি ন্যূনতম ৫২৩২.৭৫ টাকা হওয়ার কথা। এই গ্রেড ৬৩ শতাংশ মূল মজুরি বাড়ানো হয়েছে বলা হলেও, প্রকৃতপক্ষে তা বেড়েছে মাত্র ২৮.০৪ শতাংশ। একই হিসাবে, গ্রেড চারের ক্ষেত্রে ন্যূনতম মূল মজুরি দাঁড়ায় ৫৫৭২.২৫ টাকা, এক্ষেত্রে বেড়েছে মাত্র ২৬.৫২%। একইভাবে, গ্রেড তিন, দুই ও এক-এর ক্ষেত্রে মূল মজুরি প্রকৃত বৃদ্ধি পাবে ২৪.১৬%, ২৩.৯৭% এবং ২৪.৭১%।

বিস্তারিত জানতে নিচে ক্লিক করুন -

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

তৈরি পোশাক খাতের ঘোষিত নিম্নতম মজুরি বৃদ্ধির হারে শুভঙ্করের ফাঁকি; মজুরি বোর্ডকে চিঠি দিয়ে পুনর্বিবেচনার আহ্বান টিআইবির