pic_ms_iacd7_16_en.jpg

করোনাকালীন সংকট মোকাবেলায় কুষ্টিয়া’র বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার নাগরিক’দের সম্মিলিত প্রত্যয়

User Rating:  / 0
PoorBest 
ব্যক্তিগত পর্যায়ে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণের পাশাপাশি প্রশাসনকে দায়িত্ব পালনে সহায়তা ও সকলের প্রতি মানবিক আচরণ চর্চার মাধ্যমে করোনাকালীন সংকট মোকাবেলায় দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে কুষ্টিয়া শহরের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার নাগরিক।  সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), কুষ্টিয়া-এর উদ্যোগে গত ২৯ জুন ২০২০ সন্ধা ৭:৩০টায় অনুষ্ঠিত ‘করোনাকালীন সংকট: জন-প্রত্যাশা, করনীয় ও চেলেঞ্জ- প্রেক্ষিত কুষ্টিয়া’ বিষয়ক এক ওয়েবিনার এ যুক্ত হয়ে কুষ্টিয়া’র নাগরিকবৃন্দ এ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। 
মার্চে, ২০২০ এর মাঝামাঝি থেকে বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে সারাদেশে জনমনে একধরনের আতংক, হতাশা এবং অনিশ্চয়তা বিরাজ করছে। স্বাস্থ্যসেবায় অব্যবস্থাপনা, শিক্ষার্থীদের অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ, সরকারি অনুদান বন্টনে নানাবিধ অনিয়ম ও সমন্বয়হীনতার সংবাদ প্রভৃতি মানুষকে আরোও বেশি উদ্বিগ্ন করে তুলেছে। এ ধরণের পরিস্থিতিতে ব্যক্তিগত পর্যায়ে সতর্কতার পাশাপাশি সম্মিলিতভাবে মোকাবেলা করা সম্ভব হলে তা অধিক ফলপ্রসু হবে- এ ভাবনা থেকেই অবস্থার উত্তরণে এবং করোনাকালীন সংকট প্রতিরোধে যথাযথ কর্তৃপক্ষ, জনপ্রতিনিধি, পেশাজীবি ও সাধারণ মানুষের কার্যকর যোগাযোগ ও সমিন্বত উদ্যোগ গ্রহণের লক্ষ্যে ওয়েবিনার’টি আয়োজন করা হয়।  
সনাক, কুষ্টিয়া’র সভাপতি মোঃ রফিকুল আলম টুকু এর সভাপতিত্বে পরিচালিত ওয়েবিনার’টি অনলাইন প্লাটফর্ম জুমের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়। অনুষ্ঠানে প্যানেল আলোচক হিসেবে যুক্ত ছিলেন কুষ্টিয়া’র জেলা প্রশাসক মো: আসলাম হোসেন, ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড. হারুন উর রশিদ আসকারী, টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান, কুষ্টিয়ার জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি হাজি রবিউল ইসলাম, কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. নুরুননাহার বেগম এবং সিভিল সার্জন ডা. এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম। 
এছাড়া কুষ্টিয়া’র বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, আইনজীবী, শিক্ষাবিদ, সাংবাদিক, এনজিও প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের প্রতিনিধি, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীগণ, সনাক, স্বজন, ইয়েস, ইয়েস ফ্রেন্ডস গ্রুপের সদস্যগণ এবং টিআইবি’র কর্মীবৃন্দসহ কুষ্টিয়া’র বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার ১০০ জন নাগরিক এ ওয়েবিনারে অংশগ্রহণ করেন। 
কুষ্টিয়া’র জেলা প্রশাসক মো: আসলাম হোসেন বলেন, জনগণকে সামাজিক দায়িত্ববোধের পাশাপাশি ব্যক্তি দায়িত্ববোধকেও সমানভাবে গুরুত্ব দিতে হবে। সামাজিক দূরত্বের পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধিও সঠিক নিয়মে মেনে চলতে হবে। করোনা আক্রান্ত রোগীর প্রতি সকলকে মানবিক আচরণের আহ্বান জানান তিনি। তিনি বলেন, সকলকে জরুরী প্রয়োজনে বাহিরে বের হওয়ার সময় মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। সকলকে সরকারের নিয়ম মেনে চলতে হবে। করোনা সংকট মোকাবেলার জন্য তার প্রশাসন সর্বাত্বক চেষ্টা করে যাচ্ছে। তিনি কুষ্টিয়া’র সকল শ্রেণি পেশার মানুষকে দক্ষতার সাথে নিজ নিজ পেশাগত দায়িত্ব ও সামাজিক দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান। তিনি আরও বলেন, করোনা সংক্রান্ত বা অন্য যে কোন সমস্যা প্রশাসনের নজরে আনলে তা দ্রুততর সময়ের মধ্যে সমাধান করা হবে।
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড. হারুন উর রশিদ আসকারী বলেন, ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষা কার্যক্রম যাতে ব্যহত না হয় তার জন্য অনলাইনে পাঠদানের ব্যবস্থা করেছেন। তিনি আরও বলেন, কোন শিক্ষার্থী অর্থের অভাবে ইন্টারনেট ডাটা ক্রয় করতে না পারলে অবহিত করলে সমস্যা সমাধান করা হবে। 
কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলাম বলেন, প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও তার রাজনৈতিক দল ও নেতা কর্মীরা করোনা মোকাবেলার জন্য দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন এবং দুস্থদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত আছে। তিনি করোনা মোকাবেলায় একে অপরকে দোষারোপ না করে সকলকে এক সাথে কাজ করার আহ্বান জানান। 
কুষ্টিয়া সদর হাসপাতারের উপ-পরিচালক বলেন, হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য ১০টি আইসিইউ বেড ও সেন্ট্রাল অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা করা হচ্ছে যা আগামী এক মাসের মধ্যে চালু করা যাবে। এছাড়া হাসপাতালকে লাল, হলুদ ও সবুজ জোনে ভাগ করা হয়েছে এবং সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান। কুষ্টিয়া’র সিভিল সার্জন ডা. এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম, বলেন কুষ্টিয়াতে করোনা আক্রান্তদের বেশির ভাগই উপসর্গ ছাড়া কুষ্টিয়া শহরে লকডাউন করার কারণে সংক্রামণ ছড়াবে না এবং বাহিরের থেকেও যেন সংক্রামণ ছড়াতে না পারে তার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হযেছে।
ওয়েবিনারে কুষ্টিয়া’র বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার ১১জন বিশিষ্ট নাগরিক মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন। তারা করোনা মোকাবেলায় বাস্তব চ্যালেঞ্জ ও করণীয় বিষয়ে তাদের মতামত তুলে ধরেন। এছাড়া অনেকে ওয়েবিনারে লিখিতভাবে তাদের মতামত ব্যক্ত করেন। 
সভাপতির বক্তব্যে সনাক, সভাপতি মো: রফিকুল আলম টুকু বলেন, সকলকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, সঠিক নিয়মে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাহিরে বের হবেন না, বাহিরে বের হলে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। সকলের প্রতি মানবিক আচরণের মাধ্যমে অদৃশ্য শত্রু মহামারী করোনার মোকাবেলার আহ্বান করেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সনাক, কুষ্টিয়র সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান লাকী ও কুষ্টিয়া সনাকের এরিয়া ম্যানেজার মো: আরিফুল ইসলাম। 
 
প্রতিবেদন প্রণয়নে:
মোহাম্মদ আব্দুর রহমান, প্রোগ্রাম ম্যানেজার-সিই, টিআইবি
অসীম সিংহ, এ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার, সনাক, টিআইবি-কুষ্টিয়া

Add comment

Only the commentator have the whole liability for any comment.


Security code
Refresh

Posts by Year