pic_ms_iacd7_16_en.jpg

টিআইবি’র ‘এলাক’ এর পরামর্শ নিয়ে প্রতিবন্ধি সন্তানের শিক্ষাভাতার টাকা উদ্ধার করলেন লালমনিরহাটের আজিজার রহমান

User Rating:  / 8
PoorBest 

গ্রামের সহজ, সরল ও দরিদ্র ব্যক্তি আজিজার রহমান, অল্প কিছু পন্য নিয়ে ছোট্ট একাটি মুদি দোকান চালিয়ে সংসারের ব্যয় নির্বাহ করেন। দারিদ্রতার মধ্যেও তিন সন্তানকেই পড়াশুনা করাচ্ছেন স্থানীয় মানসিকা কিন্ডারগার্টেন ও জুনিয়র হাইস্কুেল। তিন সন্তানের মধ্যে বড় সন্তান প্রতিবন্ধি, নাম শরীফুল হক। অভিযোগকারীর প্রতিবন্ধি সন্তানটি উক্ত স্কুেল সপ্তম শ্রেনীতে লেখাপড়া করে। ২০১৫ সালে ঐ সন্তান প্রতিবন্ধি শিক্ষা উপবৃত্তি ভাতা হিসেবে ৩৬০০ টাকা দেয় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু এর পর প্রতিবন্ধি শিক্ষা উপবৃত্তি ভাতার আর কোন টাকা দেয়নি। বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কাছে ২০১৬ সালের ভাতার টাকা না দেয়ার কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে কোন সদুত্তর পাননি আজিজার রহমান। তবে লোকমুখে শুনতে পান যে, কোন এক শিক্ষক বা বিদ্যালয়ের কোন কর্মচারী বিদ্যালয় থেকে তার ছেলেকে সাথে নিয়ে সমাজ সেবা অফিসে গিয়ে তার সন্তানের স্বাক্ষর দিয়ে উক্ত টাকা তুলে নিয়ে গেছে। এই কথা শুনার পর সন্তানের প্রতিবন্ধি শিক্ষা উপবৃত্তি ভাতার টাকা পাওয়ার হাল ছেড়ে দেন। তবে, গত ১৭ জানুয়ারীর, ২০১৭ তারিখ এলাকের সন্ধান পেয়ে তিনি সন্তানের প্রতিবন্ধি শিক্ষা উপবৃত্তি ভাতা প্রতারণার মাধ্যমে ৩৬০০ টাকা তুলে নেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন। উক্ত অনিয়মের বিষয়টির সমাধানের জন্য প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রত্যাশা করেন।

অভিযোগকারীকে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রধান শিক্ষকসহ স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে এবং উপজেলা সমাজসেবা অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করতে পরামর্শ দেয়া হয়। পরামর্শ অনুযায়ী অভিযোগকারী স্কুল কর্তৃপক্ষের (প্রতিষ্ঠাতা) কাছে অভিযোগ দেন এবং পাশাপাশি এটাও বলেন যে, টাকা না পেলে তিনি সংশ্লিষ্ট সবার বিরুদ্ধে সমাজসেবা অফিসে এবং দুদকে অভিযোগ করবেন। স্কুল কর্তৃপক্ষ তার আবেদনের প্রেক্ষিতে দ্রæত সংশ্লিষ্ট শিক্ষক ও অন্যান্যদেরকে উক্ত শিশুটির প্রাপ্য উপবৃত্তির টাকা দেয়ার নির্দেশ প্রদান করেন। কয়েকদিনের মধ্যেই সংশ্লিষ্ট শিক্ষক ও অন্যান্যরা অভিযোগকারীর প্রতিবন্ধি ছেলের নামে প্রাপ্ত ৬০০০ টাকা অভিবাবকের হাতে তুলে দেন। এমনকি স্কুল কর্তৃপক্ষ অভিযোগকারীকে পরবর্তীতে ছাত্রের অভিভাবক  হিসেবে স্কুল ম্যনেজমেন্ট কমিটির সদস্য হিসেবে অন্তভূক্ত করেন।

 

...................................................................................

মিজানুর রহমান

ফ্যাসিলিটেটর,

অ্যাডভোকেসী অ্যান্ড লিগাল অ্যাডভাইস সেন্টার (এলাক)

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)

Add comment

Only the commentator have the whole liability for any comment.


Security code
Refresh

Posts by Year