pic_ms_iacd7_16_en.jpg

দুর্নীতি প্রতিরোধে একটি সাহসী পদক্ষেপের কাহিনি

User Rating:  / 3
PoorBest 
দুর্নীতি একটি সামাজিক ব্যাধি, দুর্নীতের প্রভাবে সাধারন জনগন যেমন পিছিয়ে পড়ছে,  তেমনি দেশ সার্বিক  উন্নয়ন অবকাঠামো থেকে বাধা পড়ছে। আমলাতান্ত্রিক জটিলতা এবং প্রশাসনিক দুর্বলতার কারনে  দুর্নীতি রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। এই অবস্থার মধ্যে বাগেরহাট সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা শরীফ নজরুল ইসলাম তার উপজেলাকে " দুর্নীতি বিরোধী উপজেলা প্রশাসন " গঠনের লক্ষে একটি প্রকল্প কার্যক্রম হাতে নেন। উপজেলায় আগত সেবা গ্রহিতাদের  সহজ সেবা প্রাপ্তির লক্ষে "সম্মিলিত হেল্প ডেস্ক"গঠন করেন এবং উপজেলার আওতাধীন সকল দপ্তরের গণশুনানীর ব্যবস্থা করেন এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তা নির্ধানের ব্যবস্থা করেন । প্রকল্পের কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে ধারনা অর্জনের লক্ষে  স্থানীয় অমুনাফাভোগী সামাজিক সংস্থা " আলোকবর্তিকা"  কে বাগেরহাট সদর উপজেলার ইউএনও মহোদয় তার উপজেলার দুর্নীতি পরিমাপের জন্য সেবা গ্রহিতাদের কাছ থেকে মতামত জরিপ কাজ করে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য আহবান জানান।  (১১-০২-২০১৭) সকাল ১১:৩০ মিনিটে বাগেরহাট সদর উপজেলার সভা কক্ষে আলোকবর্তিকার উদ্যোগে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বাগেরহাট সদর উপজেলা প্রশাসনের দুর্নীতি ও এর প্রভাব সম্পর্কিত মতামত জরিপের ফলাফল প্রকাশ করা হয়। উক্ত সংবাদ সম্মেলন ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে  ইউএনও শরীফ নজরুল ইসলামের সঞ্চালনায় সভায় সভাপতিত্ব করেন আলোকবর্তিকার উপদেষ্টা জনাব  এম.এ. মতিন।
আলোকবর্তিকার সভাপতি মো. সুরুজ খাঁনের উপস্থাপিত প্রতিবেদনে দেখা যায় প্রত্যক্ষ ৩৭৩ জন সেবাগ্রহীতার কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। ৯৫.১৭% তথ্যদাতা সার্বিকভাবে দুর্নীতিমুক্ত থেকে স্বচ্ছতার সাথে সেবা গ্রহণ করতে পেরেছেন। কিন্তু ৪.৮৩% তথ্যদাতা দুনীতির শিকার হয়েছেন এবং ৭.৫১% তথ্যদাতা সময়ক্ষেপণ হয়েছে বলে মনে করেন। সার্বিকভাবে ৩৫.৩৯% তথ্যদাতা খুবই সন্তুষ্ট এবং এই জরিপ দুর্নীতি প্রতিরোধে কার্যকর হবে বলে মনে করেন ৪৯.৩৩%। দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তা আছে জানেন ৫৪.৬৯% এবং গণশুনানীর ব্যবস্থা আছে জানেন ৫১.৭৪%। কিন্তু তথ্য অধিকার আইন সম্পর্কে কিছুই শোনেন নি ৬১.৬৬% তথ্যদাতা।
আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন কথা সাহিত্যিক সুশান্ত মজুমদার, রাংদিয়া স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি মীর ফজলে সাঈদ ডাবলু, খানজাহান আলী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ ও  আলোকবর্তিকার উপদেষ্টা খোন্দকার আছিফউদ্দিন (রাখী), বাগেরহাট প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি ও আলোকবর্তিকার উপদেষ্টা বাবুল সরদার, সনাক সদস্য প্রফেসর মোশাররফ হুসাইন, অধ্যক্ষ সইফ উদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।
বক্তারা জরিপের ফলাফলে সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং বাগেরহাট সদর উপজেলার এই স্বচ্ছতার ধারা অব্যাহত থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন।
সার্বিক দিক থেকে এটি একটি সাহসী পদক্ষেপের উদাহরন। এই উদ্যোগ সকল সরকারি দপ্তরের  দৃষ্টান্ত হিসেবে প্রতিয়মান হবে বলে ধারনা করা হয়।
তাই বলা যায়- 
আমাদের সকলের সাহসী পদক্ষেপের মাধ্যমে আমরা পেতে পারি একটি দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ। 
এবার আওয়াজ তুলি সমস্বরে " দুর্নীতির বিরুদ্ধে একসাথে"

Add comment

Only the commentator have the whole liability for any comment.


Security code
Refresh

Posts by Year