pic_ms_iacd7_16_en.jpg

সফলতা আসবেই শুধু প্রয়োজন সাধারন জনগনের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি

User Rating:  / 6
PoorBest 

 

বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রের সকল ক্ষমতার মালিক জনগন। 

সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের নাগরিক সেবা পাওয়া  জনগনের অধিকার। এই অধিকার বলে নাগরিক তার ইচ্ছা অনুযায়ী সকল দপ্তরের খোজ খবর নিতে পারে এবং তথ্য অধিকার আইন ২০০৯ অনুযায়ী সরকারি দপ্তরের বিভিন্ন তথ্য দিতে  সরকারি কর্মকর্তারা বাধ্য।

আমরা যারা সচেতন নাগরিক আমাদের দায়িত্ব মানুষকে সচেতন করা, তাদের মধ্যে সরকারি সেবা পাওয়ার পদ্ধতি সহজ করে বুঝিয়ে দেওয়া।

দেখা যায়-  এসকল বিষয় গুলো সাধারন জনগন ঝামেলা মনে করে, তারা এসব নিয়ে ভাবে না। কিছু লোক আছে - তাদের কাজের প্রয়োজনে তারা সরকারি সেবা মূল্য থেকেও বেশি বা বাড়তি টাকা দিয়ে দালাল বা সরাসরি বিভিন্ন যোগসাজশ এর মাধ্যমে তাদের কাজ করে থাকে।

আর এই কারনে একেবারে যারা প্রকৃত অসহায় মানুষ তারা সরকারি সেবা পেতে খুবই দূর্ভোগের সামিল হয়। দূর্বল ও অসহায়ত্বের কারনে  তারা সরকারি সেবা বুঝে নিতে পারেনা এবং তারা প্রতিবাদি হওয়ার সাহস পায়না। এই সুযোগে বিভিন্ন কর্মকর্তারা তথ্য দিতে অনিহা প্রকাশ করে, দিতে চায়না এবং সঠিক সেবা দেয়না। 

তাই, সাধারন মানুষের কষ্টের সীমা থাকে না।

এখন যা প্রয়োজন তা হলো- 

বিভিন্ন উপায়ে মানুষকে তার অধিকার আদায়ে সচেতন করা। মানুষ যত বেশি সচেতন হবে তত বেশি তার অধিকার বুঝে নিতে সক্ষম হবে।  

টিআইবীর ইয়েস গ্রুপে কাজ করার মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন ভাবে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করছি। দুর্নীতি বিরোধী সামাজিক আন্দোলনের অংশ হিসেবে আমরা কাজ করছি। দুর্নীতি মুক্ত বাংলাদেশ দেখার সপ্নে আমরা আত্ববিশ্বাসী। স্যাটেলাইট ক্যাম্পেইন এর মাধ্যমে মানুষকে বিভিন্ন তথ্য প্রদান করছি এবং তাদের সমস্যা গুলো সমাধানে প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করছি। ভ্রাম্যমান তথ্য ও পরামর্শের মাধ্যমে,  মানুষ আশাবাদি হচ্ছে তথ্য জেনে তারা তাদের অধিকার বুঝে নিতে কিছুটা হলেও সক্ষম হচ্ছে।  সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পড়াশুনার মান বৃদ্ধির লক্ষে ' মা ও অভিবাবক  সমাবেশ'  এর আয়োজন  করছি, যার মাধ্যমে মায়েরা সন্তানের পড়ালেখার প্রতি গুরুত্ব দিচ্ছে এবং বিদ্যালয়ে এসে ছেলেমেয়েদের খোজ খবর নিচ্ছে।  পাশাপাশি মায়েরা বিদ্যালয়ে ছেলে মেয়ে পাঠিয়ে যেসব সমস্যা মনে করছে সে বিষয়ে তারা মতামত প্রদান করছে এবং এর মাধ্যমে সমস্যার সমাধান হচ্ছে।

সদর হাসপাতালে সেবার মান বৃদ্ধির লক্ষে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে রোগীদের মতবিনিময় সভার আয়োজনের মধ্য দিয়ে হাসপাতালে আগত রোগীরাও তাদের সমস্যার কথা বলছে এবং তাদের মতামত প্রদান করছে।

সেই সাথে সাথে সমস্যাগুলো চিন্নিত করা হচ্ছে এবং সমাধান করা হচ্ছে।

স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী ও নাগরিক অংশগ্রহন বৃদ্ধির লক্ষে নির্বাচন কালিন সময় সঠিক প্রার্থী বাছাই কর্মসূচি পালিত হয়, জনগনের মুখোমুখি জনপ্রতিনিধি ও সুধী সমাবেশের আয়োজন করা হয়,  উন্মুক্ত বাজেট সভা ও ওয়ার্ড সভা আয়োজনের মাধ্যমে জনগনের অংশগ্রহন বৃদ্ধি পাচ্ছে।  সাধারন জনগন তাদের সঠিক সেবা পাচ্ছে এবং স্থানীয় সমস্যা সমাধানে উদ্যোগি হচ্ছে। এভাবেই আমরা আমাদের বিভিন্ন কাজের মাধ্যমে জনগনকে সচেতন করছি। এভাবে বিভিন্ন কাজের মাধ্যমে স্ব স্ব উদ্যোগে যদি চিন্তা করি এলাকার উন্নয়ন,  মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন,  তথাপি দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ যদি দেখতে চাই, তবে আমাদের আওয়াজ তুলতে হবে -  

" Raise Your Voice" এবার আওয়াজ তুলুন...

মোটকথা, আমরা সকলে মিলে যদি একসাথে ঐক্যবদ্ধ হতে সম্মুক্ষিণ হয় , আমরা যদি আমাদের প্রাপ্য অধিকার আদায়ে সচেতন থাকি - তবেই, বাংলাদেশ থেকে দুর্নীতি নামক শব্দ বিলিন হবে আর আমরা পাবো দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ। 

 

Add comment

Only the commentator have the whole liability for any comment.


Security code
Refresh

Posts by Year