pic_ms_iacd7_16_en.jpg

পাত্র যখন শিক্ষক

User Rating:  / 7
PoorBest 

শুক্রবার, শরীরটা বিশেষ ভালো ছিল না। সন্ধ্যার পর জ্বর ও সারা শরীর ব্যথা নিয়ে বের হয়েছিলাম একটা বন্ধুর সাথে। দু'জনে ঘুরে-ফিরে এসে অন্য একটা বন্ধুকে  ফোন দিলাম সঙ্গ দেওয়ার জন্য, কেননা এরই মাঝে প্রথম জন বিদায় নিয়েছে। শুধু সঙ্গ না, শিশু নির্যাতন ও ধর্ষণ বিরোধী একটি মানববন্ধন করবো, এই কারণে ইউপি মেম্বার, চেয়ারম্যানের সাথে দেখা করা প্রয়োজন ছিল।
চেয়ারম্যানের সাথে দেখা করে ফিরবো এমন সময় মনে পড়লো একটা ছোট ভাই একটি চিরকুট দিয়েছিল - বাল্য বিবাহ হতে যাচ্ছে, এমন একটি মেয়ের তথ্য। চেয়ারম্যানকে দিতেই বললেন পদক্ষেপ নাও। আবার বললেন, চলো, বিয়ে একটা এক্ষণই বন্ধ করতে হবে।
আমরা পাঁচজন তিনটা মটর সাইকেলে যেতে যেতে রাস্তা হতে আরো তিন/চারটা মটর সাইকেল এবং ছয়/সাত জন লোক যোগ দিয়েছিলো। ঐ বাড়ি পৌঁছে দেখি, এলাকাবাসী পাহারা দিচ্ছে বিয়ে হচ্ছে কিনা! শুনলাম কোন রেজিষ্ট্রি কাজী বিয়ে পড়াতে রাজী হন নি বরং তারাই ইউএনও/চেয়ারম্যানকে ফোন করছেন। তারপরও তারা স্থানীয় লোক দিয়ে রেজিষ্ট্রি ছাড়া বিয়ে পড়াতে যাচ্ছে।
 চেয়ারম্যান বুঝিয়ে বললেন, সরকার কি চায়, আইনে কি বলে - বিস্তারিত। আমার কথা ছিলো সামান্য এইটুকু, "আপনার মেয়ে যদি এক বছর পরও গর্ভবতী হয়, তবে বয়স হবে সতেরো আর চিকিৎসা বিজ্ঞান বলে বিশের আগে সন্তান নেওয়া ঠিক নয়। আপনি-ই বলেন, এতে করে কি আপনার মেয়ের ভালো হচ্ছে?"
আমি এখনও জানি না, কার সাথে কথা বলছি, যে বর সেজে এসেছে তার পেশা কি? মেয়ের বাবার পেশা কি? বিয়ে বন্ধ করে ফিরতি পথে এক মোড়ে দাঁড়িয়েছিলাম পানি খেতে আর ইউপি সদস্যের সাথে কথা বলার জন্য। ঘড়িতে রাত দশটার বেশি, পানি খেয়ে ঐ বাড়ির তথ্যের জন্য কথা শুরু করলাম, কেননা একটি অনলাইন পত্রিকায় সংবাদদাতা হিসাবে কাজ করছি।
ইউপি মেম্বারের কথা শুনে চোখ কপালে ওঠার জোগাড়। মেয়ের বয়স ষোল বছর, মেয়ের বাবা একটি আলীম মাদ্রাসার শিক্ষক। পাত্রকে নিজে দেখেছিলাম যার বয়স ত্রিশের উপরে, শুনলাম একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক। ঠিক তখনই মনে পড়লো ঐ ছেলে চেয়ারম্যানকে বলেছিল, "ইউএনও'র একটি মিটিং-এ ছিলাম। তিনি বলেছিলেন, বাল্য বিবাহ হলে কোন ছাড় দেওয়া হবে না। আইনের আওতায় আনা হবে।" এত কিছু জানার পরও তিনি সাদা পান্জাবী-পায়জামা পরে, টুপি মাথায় দিয়ে, দাঁড়িতে সুন্দর করে তেল মেখে, পরিপাটিভাবে চলে এসেছেন বর সেজে।
আমি অবাক হয়ে ভাবলাম, একজন শিক্ষক মেয়ের বাবা অন্যদিকে পাত্রও একজন শিক্ষক। এই শিক্ষকরা শ্রেণি কক্ষে শিক্ষার্থীদের কি শিক্ষা দেন তা আমার বোধগম্য নয়। যারা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল নয়, তাদের দ্বারা সুশিক্ষিত সমাজ গঠন কেমন করে সম্ভব?
আমার মনে হয়, এমন লোকেরা শুধুমাত্র অক্ষর জ্ঞান সম্পন্ন কিন্তু শিক্ষিত না। শিক্ষিত হতে হলে শিক্ষাটাকে লালন করতে হয়, চর্চা করতে,  যে জ্ঞান অন্যের মাঝে বিলিয়ে দিতে পারে পারা যায়, যা অন্যকে জ্ঞানী করে তোলে - সেটাই হবে শিক্ষা। কিন্তু উল্লেখিত শিক্ষকরা শুধুমাত্র অক্ষর চিনিয়ে দেয় শিক্ষার্থীদের, জ্ঞান বিলিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা তাদের নেই।
এরূপ শিক্ষক দ্বারা শুধু অক্ষর চেনানো সম্ভব কিন্তু শিক্ষিত জাতি গঠন সম্ভব হবে না।

Comments   

 
+1 #2 Md. Suruj Khan 2016-06-19 01:02
তাই তো দেখছি, আইন শুধু পুস্তকে, প্রয়োগ খুবই কম।
Quote
 
 
0 #1 Dilruba Begum Monalisa 2016-06-15 10:42
কাজির গরু খাতায় আছে, গোয়ালে নাই।
Quote
 

Add comment

Only the commentator have the whole liability for any comment.


Security code
Refresh

Posts by Year