pic_ms_iacd7_16_en.jpg

সিটিজেন জার্নালিজম বা জন-সাংবাদিকতা

User Rating:  / 9
PoorBest 

জন-সাংবাদিকতার ধারণা
স্বতস্ফূর্ত ও স্বপ্রণোদিত হয়ে গণমানুষের খবর ও তথ্য সংগ্রহ, পরিবেশন, বিশ্লেষণ এবং প্রচারে অংশগ্রহণ করাই হচ্ছে সিটিজেন জার্নালিজম বা জন-সাংবাদিকতা। এ জাতীয় সাংবাদিকতায় প্রাতিষ্ঠানিক কোনো স্বীকৃতি, পরিচয় এবং প্রশিক্ষণ ছাড়াই আধুনিক প্রযুক্তি ও ইন্টারনেট ব্যবহার করে সাধারণ জনগণ নিজেরা বা অন্যের সহায়তায় তথ্যের আদান প্রদান করে থাকে। জন-সাংবাদিকতার ধারণায় মূল ধারার গণমাধ্যমে যারা পাঠক, দর্শক ও শ্রোতা হিসেবে বিবেচিত হন তারাই মূলত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরস্পরের তথ্য-উপাত্ত আদান প্রদান করে থাকেন।


বিজ্ঞাপন নির্ভর বাণিজ্যিক মডেলে পরিচালিত মূল ধারার গণমাধ্যমের একাংশের আধেয় তৈরি ও প্রচারের নানা মাত্রিক দৃষ্টিভঙ্গির প্রভাব মুক্ত জন-সাংবাদিকতা আজ সাধারণ মানুষের কাছে প্রকৃত মাধ্যম হিসেবে স্বীকৃত।  ক্ষেত্রবিশেষে মালিক পক্ষের স্বার্থ, বগুজাতিক কোস্পানিসহ বিভিন্ন বিজ্ঞাপনদাতা প্রতিষ্ঠান এবং সংবাদমূল্য ও এজেন্ডা সেটিং এর মতো প্রচলিত ধারার গেটকিপারের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ভূমিকা পালনের সুযোগ অপেক্ষাকৃত কম থাকয়, জন-সাংবাদিকতার মাধ্যমে সত্যিকার অর্থে গণমানুষের স্বার্থে কাজ করার অবারিত সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।


৯০’র দশকের শেষের দিকে ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব এবং ডটকম ধারণার আর্বিভাব মূল ধারার গণমাধ্যমের আধেয় উপস্থাপনের ক্ষেত্রে এক যুগান্তকারী পরিবর্তনের সূচনা করে। জ্য রোসেনস্ এর মতে প্রচলিত মূলধারার গণমাধ্যমে যারা পাঠক, দর্শক ও শ্রোতা তারাই হচ্ছে জন-সাংবাদিকতার নীতি-নির্ধারক তথা সাংবাদিক, মালিক এবং সম্পাদক। এক সময় যারা শুধু গণমাধ্যমে প্রচারিত ও প্রকাশিত তথ্য তথ্য-উপাত্তের ওপর নির্ভর করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতো, তথ্য প্রযুক্তির অপার সম্ভাবনার এই সময়ে তারাই সংবাদ তৈরি এবং প্রচার করছে।


জন-সাংবাদিকতার একটি গুরত্বপূর্ণ দিক হলো এটা নির্দিষ্ট ভৌগলিক কোনো সীমারেখার মধ্যে সীমাবদ্ধ বা নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। নির্দিষ্ট ভাষাভাষির সকলেই বিশ্বের যে কোনো প্রান্তে বসে তার চারপাশের ঘটে যাওয়া ঘটনাসমূহ তুলে ধরতে পারেন, প্রতিবাদ জানাতে পারেন কিংবা একাত্মতা ঘোষণা করতে পারেন।


সিটিজেন জার্নালিজমের মাধ্যমে একজন সচেতন নাগরিক তার নিজের জ্ঞান ও সৃজনশীলতা সমাজের প্রয়োজনে নিয়োজিত করতে পারেন। আর তাই, সাংবাদিকতার কোনো ধরনের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা বা পরিচয় ব্যতিরেকে অনলাইন ভিত্তিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবহার করে যখন কেউ তার চারপাশের ঘটে যাওয়া কোনো ঘটনা, বিষয় সম্পর্কে নিজস্ব মতামত কিংবা সঠিক তথ্য-উপাত্ত লেখনী, তথ্যচিত্র, ইনফোগ্রাফিক্স, ক্ষুদেবার্তা, অডিও, ভিডিও বা অন্য কোনো ভাবে জনস্বার্থে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসমূহে প্রচার বা প্রকাশ করে, তাহলে তাকে জন-সাংবাদিকতা বলা যেতে পারে।


জন-সাংবাদিকতার উদ্ভব ও বিকাশ
নব্বই’র দশকে ইন্টারনেট ভিত্তিক world wide web এর আর্বিভাবকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের উদ্ভব। কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএইচডি’র ছাত্র ক্রিস অ্যান্ডারন্স বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) সিয়াটলে গৃহীত বিতর্কিত সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ১৯৯৯ সালে ‘ইন্ডিমিডিয়া’ (Indy media) নামে জন-সাংবাদিকতার (সিটিজেন জার্নালিজম) প্রথম স্বীকৃত প্লাটফরম প্রতিষ্ঠা করেন।

বহুল ব্যবহৃত সার্চ ইঞ্জিন গুগলের যাত্রা শুরু হয় ১৯৯৮ সালে, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে ফেজবুক ২০০৪ সালে, টুইটার ২০০৬ সালে এবং অ্যাপলে-আই ফোন ২০০৭ সালে। এদের আর্বিভাব এবং উদ্ভাবন জন-সাংবাদিকতার ধারণা বিস্তারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। একইসাথে সহজ প্রযুক্তি নির্ভর স্মার্টফোনের আর্বিভাব জন-সাংবাদিকতা অগ্রযাত্রাকে আরো ত্বরান্বিত করছে।  মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ক্ষুদে বার্তা প্রেরণ, ছবি, ভিডিও ধারণ ও আপলোড করার সুবিধা জন-সাংবাদিকতা আরও সহজতর করেছে।


তবে স্বীকৃত না হলেও জন-সাংবাদিকতার ধারণা একেবারেই নতুন কিছু নয়। আব্রাহাম জ্যাপ্রুডার জন এফ কেনেডি’র হত্যাকা-ের ভিডিওচিত্রটি ধারণ করেছিলেন একটি সাধারণ ক্যামেরা দিয়ে। অনেকেই তাকে জন-সাংবাদিকতার জনক বলে মনে করেন।


ম্যাট ড্রাডজ ১৯৯৬ সালে হলিউডের নায়ক নায়িকাদের মুখরোচক নানা ঘটনা এবং মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্রের রেটিং সংক্রান্ত তথ্য ও উপাত্ত ই- মেইলের সাহায্য নির্দিষ্ট কিছু গ্রাহকের কাছে পাঠাতেন। ১৯৯৮ সালের জানুয়ারিতে ড্রাডজ জানতে পারেন যে, বিল ক্লিনটন ও মনিকা লিউনিস্কি নামে হোয়াইট হাউজের একজন শিক্ষানবীশের যৌণ কেলেঙ্কারির ঘটনা প্রভাবশালী গণমাধ্যম ‘নিউজউইক’ জানা সত্বেও এড়িয়ে যাচ্ছে। নিউইয়র্কের একজন এজেন্টের সাথে কথা বলে তিনি ঘটনার সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হন এবং তার ই-মেইল গ্রাহকদের কাছে প্রকাশ করেন। এই ঘটনাটি প্রচলিত মূল ধারার গণমাধ্যম সম্পর্কে মানুষ কিছুটা হলেও সন্দিহান করে তোলে এবং বিকল্প মাধ্যম হিসেবে ইন্টারনেট ভিত্তিক নানা মাধ্যমের আর্বিভাব ঘটতে থাকে। অন্যভাবে বললে ইন্টারনেটসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসমূহ জন-সাংবাদিকতার উদ্ভব ও বিকাশকে ত্বরান্বিত করেছে। বিল ক্লিনটনের এই ঘটনাটি সাংবাদিতার ইতিহাসে ই-ওটারগেট কেলেঙ্কারি নামে পরিচিত। পরবর্তী সময়ে মূল ধারার গণমাধ্যমসমূহ এ ব্যাপারে বিস্তারিত সংবাদ প্রচার শুরু করে।


এখন সিএনএন, বিবিসি এবং আল জাজিরার মতো মূল ধারার গণমাধ্যম অনেক ক্ষেত্রেই জন-সাংবাদিকতার ওপর নির্ভর করছে। সংবাদ সূত্র হিসেবে জন-সাংবাদিকদের ব্যবহারের পাশাপাশি অনলাইনে প্রকাশিত প্রতিটি প্রতিবেদনের শেষাংশে ঘটনাস্থলের আশেপাশের পাঠকদের তাঁদের মতামত বা মন্তব্য তুলে ধরতে অনুরোধ করছে। আর সাম্প্রতিক এই ধারা থেকে বাংলাদেশও পিছিয়ে নেই। ইতিমধ্যে আমরা দেখেছি যে মূল ধারার গণমাধ্যমে প্রচারিত ও প্রকাশিত অনেক সংবাদই প্রথম ছড়িয়ে পড়েছিলো বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

 

বিভিন্ন নামে জন-সাংবাদিকতা
প্রান্তীক সাংবাদিকতা (Grassroots Journalism)
নেটওয়ার্ক সাংবাদিকতা (Network Journalism)
ওপেন সোর্স সাংবাদিকতা (Open Source Journalism)
জন-মাধ্যম (Citizen Journalism)
অংশগ্রহণমূলক সাংবাদিকতা (Participatory Journalism)
হাইপার লোকাল সাংবাদিকতা (Hyper local Journalism)
বটম-আপ সাংবাদিকতা (Bottom-up Journalism)
স্ট্যান্ড অ্যালন সাংবাদিকতা (Stand alone Journalism)
ডিস্ট্রিবিউটেড সাংবাদিকতা (Distributed Journalism)
 
জন-সাংবাদিকতার বৈশিষ্ঠ্য
প্রত্যেকেরই সাংবাদিক হিসেবে ভূমিকা পালনের সুযোগ রয়েছে
স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে পরিচালিত হওয়ার প্রবণতা লক্ষ্যণীয়
প্রকাশিত অডিও, ভিডিও এবং প্রতিবেদন সম্পর্কে আগ্রহী যে কারো মতামত প্রদানের সুযোগ থাকে
যে কেউ মন্তব্য, বিতর্ক বা আলোচনায় অংশগ্রহণ করতে পারে
সামাজিক দায়বদ্ধতা প্রবল থাকে
বিবেকপ্রষূত শুভবুদ্ধি জন-সাংবাদিকতার নৈতিকতার একমাত্র মাপকাঠি


জন-সাংবাদিকতার রকমভেদ
মানবিক আবেদনধর্মী বা ফিচারধর্মী ব্লগ
কোনো বিষয়ের ওপর মন্তব্যধর্মী ব্লগ
তাৎক্ষণিক ঘটে যাওয়া কোনো ঘটনা নিয়ে ব্লগ
ভিডিও ব্লগ
অডিও ব্লগ
ফটোব্লগ
মাইক্রোব্লগ
মম ব্লগ
পলিটিক্যাল ব্লগ
ট্রাভেল ব্লগ


জন-সাংবাদিকতার তিন মডেল
Slashdot-Ohmynews মডেলের জন-সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে নিবন্ধিত ব্যবহারিকারিদের মতামতের ভিত্তিতে প্রতিবেদন প্রকাশ করাহয়।


Indymedia মডেলের জন-সাংবাদিকতায় যে কেউ মন্তব্য এবং প্রতিবেদন প্রকাশ করতে পারে। এক্ষেত্রে পাঠকের ওপর সিদ্ধান্ত গ্রহণের ভার ছেড়ে দেওয়া হয়ে যে, সে কোনটা গ্রহণ বা বর্জন করবে।


Wiki based মডেলের জন-সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে আপলোড করা যে কোনো প্রতিবেদন চাইলে যে কেউ সম্পাদনা বা তথ্য-উপাত্ত যোগ করতে পারে, এতেকরে কোনো একটা প্রতিবেদন বিশেষ কোনো ব্যক্তির একার নয়, বরং অনেকের অবদান থাকে তাতে।


আন্তর্জাতিক অঙ্গনের কিছু উদাহরণ
 ২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের ভয়বহ সন্ত্রাসী হামলার ভিডিও চিত্র ধারণ করেছিলেন যারা তারা কেউই কিন্তু পেশাদার সাংবাদিক ছিলেন না।


 ২০০৪ সালে সুনামির আঘাতে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার লক্ষ্যে ক্ষয়ক্ষতির গুরুত্ব বিবেচনায় ত্রাণ তৎপরতা পরিচালায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।


২০০৫ সালের ৭ জুলাই লন্ডনের ভয়াবহ বোমা হামলার ঘটনাটি একজন সাধারণ নাগরিক মোবাইল ফোনে ধারণ করেছিলেন, যা পরবর্তী সময়ে বিবিসি, সিএনএন ও এমএসএনবিসিসহ অন্যান্য মূল ধারার গণমাধ্যমসমূহ প্রচার করেছে।


 ২০০৫ সালে আমেরিকার হ্যারিকেন ক্যাটরিনা ও রিতা আঘাত হানলে সাধারণ জনগণই স্বপ্রনোদিতভাবে স্থানীয় খবরাখবর সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে কর্তৃপক্ষকে অবহিত করায় দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব হয়েছিলো।


পাকিস্তানের আবোটাবাদে বিন লাদেনের গোপন আস্তানায় মার্কিন বিশেষ বাহিনীর সিক্রেট মিশন চলাকালীন সময়ে ঘটনাস্থলের ২ থেকে ৩ কিলোমিটারের মধ্য থেকে সোয়াইব আতাহার নামে একজন জন-সাংবাদিক লাইভ টুইট করেছিলেন। যা সত্যিকার অর্থে ঐদিন কী ঘটেছিল তার সঠিক বিবরণ বলে মনে করা হয়।


 ২০০৬ সালে বিষাক্ত বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবং আইসল্যান্ডের ব্যাঙ্কিং খাতের অব্যবস্থাপনার নানা দিক নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশের মাধ্যমে উইকিলিকস এর জন্ম। কিন্তু ২০১০ সালে বাগদাদে মার্কিন বিমান হামলার ঘটনায় বেশ কয়েকজন বেসামরিক ইরাকিসহ রয়টার্সের দু’জন সাংবাদিক নিহত। মূল ধারার অনেক গণমাধ্যমই প্রকৃত সত্য ঘটনাকে এড়িয়ে যায় এবং উইকিলিকস  Collateral Murder শিরোনামের ভিডিও ফুটেজ প্রচারের মাধ্যমে আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে চলে আসে। পরবর্তী সময়ে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার দু’লাখ পঞ্চাশ হাজার গোপন নথি ফাঁস করে দিয়েছে। সম্প্রতি পানামা পেপারস নামে পরিচিত মোজেস ফনসেকার মানি লন্ডারিং সংক্রান্ত গোপন নথি প্রকাশ হওয়াতে  . . .. . . অনেক দেশের সরকার প্রধান থেকে শুরু করে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের পদত্যাগ পর্যন্ত করতে হয়েছে।


২০১০ সালের আরব বসন্ত এবং ২০১১ সালের লন্ডনের দাঙ্গার ঘটনায় জন-সাংবাদিকতার প্রতি মানুষের আস্থা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে।


জন-সাংবাদিকতা: বাংলাদেশ
২০০৫ সালে ‘সামহোয়ারইনব্লগ’ বাঁধ ভাঙার আওয়াজ শিরোনামে বাংলাদেশে জন-সাংবাদিকতার সূচনা করে। এরই ধারাবাহিকতায় ‘মুক্তমনা’সহ আরো অনেক জনপ্রিয় ও বহুল ব্যবহৃত ব্লগ এর আর্বিভাব হয়েছে। এছাড়া মূল ধারার গণমাধ্যম ‘বিডিনিউজ২৪.কম’সহ অনেকেই এখন পাঠকের মতামতকে গুরুত্বের সাথে তুলে ধরার লক্ষ্যে সিটিজেন জার্নালিজম কর্নার চালু করেছে। পাশাপাশি ইন্টারনেট ভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেজবুক তরুণ প্রজন্মের পছন্দের শীর্ষে অবস্থান করায় জন-সাংবাদিকতা বিস্তারের অবারিত সুযোগ রয়েছে। বর্তমানে দেশে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৩ কোটি ১৯ লাখ ৪৯ হাজার এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন ৬ কোটি ৪ হাজার জন (বিটিআরসি, এপ্রিল ২০১৬)। সার্বিক বিবেচনায় যা জন-সাংবাদিকতা বিকাশের অপার সম্ভাবনার দিক নির্দেশক। আগ্রহ, সচেতনতা ও জনকল্যাণমূলক বিবেককে পাথেয় করে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে একজন জন-সাংবাদিক হিসেবে যাত্রা শুরু করা এখন সময়ের দাবি। তবে এরই মধ্যে আমাদের সামনে জন-সাংবাদিকতার কিছু দৃষ্টান্ত হিসেবে রয়েছে-
বিডিয়ার বিদ্রোহের ঘটনা
রাজন হত্যাকা-
গণজাগরণ মঞ্চ
মেহেরজান বিতর্ক
তেল-গ্যাস চুক্তি
ভিকারুনন্নেসা নুন স্কুলের ছাত্রী নির্যাতন


জন-সাংবাদিকতার ইতিবাচক দিক
সম্পূর্ণ বিকল্প একটি মাধ্যম, যা বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার মানুষের মতামত প্রকাশের সুযোগ সৃষ্টি কর গণতন্ত্রকে একটি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে সাহায্য করবে
প্রাকৃতিক বা মানব সৃষ্ট যে কোনো দৃর্যোগ-দুর্বিপাকে প্রত্যক্ষদর্শীর মতামত ও বর্ণনা প্রকাশের সুযোগ সৃষ্টি করে
এলিট বা সমাজের প্রভাবশালীদের প্রভাব থেকে মুক্ত
সমাজের প্রান্তীক জনগোষ্ঠীর মূখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব পালনের সুযোগ
মূলধারার গণমাধ্যমে অপ্রকাশিত বা গুরুত্বহীন বলে বিবেচিত বিষয় এখানে তুলে ধরার সুযোগ রয়েছে
বহুজাতিক কোম্পানি ও সরকারের প্রভাবমুক্ত
রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত থেকে স্বাধীন মত প্রকাশের সুযোগ
নির্দিষ্ট কোনো ভৌগলিক সীমানার মধ্যে আটকে না থেকে একজন বিশ্ব নাগরিক হওয়ার সুযোগ তৈরি হয়
অংশগ্রহণমূলক সাংস্কৃতিক ভাবধারার বিকাশ
সার্বজনীন কল্যাণে ভূমিকা রাখার সুযোগ সৃষ্টি করে


জন-সাংবাদিকতার নেতিবাচক দিকসমূহ
ধর্মান্ধ, উগ্রপন্থী বা সন্ত্রাসীদের কার্যকলাপ প্রচারের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হওয়ার সুযোগ রয়েছে
প্রচলিত মূলধারার গণমাধ্যমের তুলনায় অপেক্ষাকৃত কম বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে হতে পারে
বিষয়াশ্রিত এবং স্বার্থের দ্বন্দ্ব প্রভৃতি প্রকট হয়ে উঠতে পারে
অধিকাংশ ক্ষেত্রে জন-সাংবাদিকতা ‘সফট নিউজ’ বা ফিচারধর্মী লেখা প্রচারের প্রবণতা লক্ষ্যণীয়


জন-সাংবাদিকতায় নীতি নৈতিকতা
মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন কোনো তথ্য-উপাত্তের প্রচার ও প্রকাশ থেকে বিরত থাকা
জাতি, ধর্ম, বর্ণ ও শ্রেণি নির্বিশেষে প্রত্যেকের নিজস্ব বিশ্বাস, সংস্কৃতি ও মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করা
ইচ্ছাকৃত বা উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে জন-গুরুত্বপূর্ণ নয় এবং ব্যক্তির মর্যাদাহানীকর কোনো বিষয়ের প্রকাশ ও প্রচার থেকে বিরত থাকা
নিজের বিবেকের প্রতি দায়িত্বশীল আচরণ করা

শেষকথা
জাতীয় ক্রিকেট দলের খেলোয়াড় নাসির হোসেন তার ছোট বোনের সাথে তোলা একটি সেলফি তার অফিসিয়াল পেইজে পোস্ট করেন। একপর্যায়ে কিছু মানুষের নোংরা মন্তব্যের কারণে নাসির হোসেন সেই পোস্ট মুছে দিতে বাধ্য হন। নায়করাজ রাজ্জাক মারা গেছেন বলে, ফেইজবুকে প্রচারণা চালানো হয়। এ খবরে প্রবীন এই শিল্পী মানসিকভাবে আঘাত পেয়েছিলেন। ভালো বা খারাপ ঘটনা ঘটাতে মাধ্যমের নিজস্ব কোনো ভূমিকা থাকে না, বরং যে বা যারা যে উদ্দেশ্যে এটা ব্যবহার করেন, তার মাধ্যমেই খারাপ বা ভালো নির্ধারিত হয়। তথ্য-প্রযুক্তির অপার সম্ভাবনার এই যুগে সামাজিক যোগাযোগোর মাধ্যমসমূহ ব্যবহার করে অনেক অসাধ্য সাধন করা সম্ভব। এক্ষেত্রে মাধ্যমসমূহের একটু সচেতন ব্যবহারই আমাদের সমাজের কাঙ্খিত পরিবর্তন ঘটাতে পারে।

Add comment

Only the commentator have the whole liability for any comment.


Security code
Refresh

Posts by Year