• header_en
  • header_bn

আন্তর্জাতিক বন দিবস-২০২১

প্রকৃতি ও পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখতে বন ও বনভূমির গুরুত্ব অপরিসীম। বিশেষকরে জীববৈচিত্র্য ও বনজ সম্পদ সংরক্ষণ, বনকেন্দ্রিক জীবন ও জীবিকা, দূষণমুক্ত ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশ নিশ্চিত করা, বায়ুমন্ডল থেকে বিষাক্ত কার্বন-ডাই-আক্সাইডের পরিমাণ হ্রাসসহ (কার্বন সিংক/সংরক্ষণ) জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় বনের কার্যকরতা সর্বজনবিদিত। অপরিকল্পিত উন্নয়ন কর্মকান্ডসহ বিবিধ কারণে বিশ্বব্যাপী প্রতিবছর ১৩ মিলিয়ন একর বনভূমি উজাড় হচ্ছে, যা ইংল্যান্ডের মোট ভূমির সমপরিমাণ। এছাড়া, বনের জীববৈচিত্র্য ও বনভূমির অবক্ষয় ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলের বন ও বন্যপ্রাণী হুমকির মুখে পড়েছে। ফলে জীববৈচিত্র্যের ধ্বংসসহ পরিবেশের ভারসাম্যহীনতা এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। নির্বিচারে বন উজাড়ের ফলে বন্যপ্রাণী বিশেষকরে হাতি, গণ্ডার ও বাঘসহ অনেক প্রজাতির প্রাণী বিলুপ্তির পথে। বনাঞ্চল উজাড়ের ফলে ক্রমশ তাপমাত্রা বৃদ্ধি ও অনিয়মিত বৃষ্টিপাতের ফলে কৃষিকাজ ও কৃষিজ উৎপাদনসহ প্রকৃতির ওপর নির্ভরশীল মানুষের জীবন-জীবিকার ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। এ প্রেক্ষাপটে স্থানীয়, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বনভূমি ও বনজ সম্পদ সংরক্ষণ, সম্প্রসারণ এবং ব্যবস্থাপনা বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে ২০১২ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ২১ মার্চকে আন্তর্জাতিক বন দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। এ বছর আন্তর্জাতিক বন দিবসের প্রতিপাদ্য হলো ‘বনের উন্নয়ন: পুনরুদ্ধার ও সমৃদ্ধি পথ’।
পুরো ধারণাপত্রের জন্য এখানে ক্লিক করুন ।